ঢাকা, শনিবার ৩১শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

সৃষ্টিশীল মানুষের বেঁচে থাকার প্রেরণা কি ? ড. সোহানী

 নিউজ রুমঃ Bijoy Bangla BD 24. COM

 প্রকাশিত: জুন ৫, ২০২০, ১১:৫৩

৬০৯ বার পঠিত

পাবনা প্রতিনিধি: সৃষ্টিশীল মানুষের বেঁচে থাকার প্রেরণা কি ? আমার মনে হয় শিল্পচর্চা । শিল্পোদ্যোক্তা পরিচয়ের বাইরে গিয়ে নিজেকে কবি এবং চিত্রশিল্পী হিসেবে পরিচয় দিতেই আমি স্বচ্ছন্দবোধ করি। সারাদিন কাজের মধ্যে থাকার পরেও নিজেকে উজ্জীবিত করি গান গেয়ে। সেই গানের কোনো দর্শক-শ্রোতা থাকে না। এ যেন নিজের জন্যই গান গাওয়া।
শৈশব থেকে দেখেছি একটা সাংস্কৃতিক পরিবেশ আমার চারপাশ ঘিরে। ছবি আঁকা, বইপড়া, গান, লেখালেখি সবকিছুর সাথে সম্পৃক্ত হয়েছি তখন থেকেই। রূপকথা ইকো রিসোর্টটাকে আমি সাজিয়েছি পরম যত্নে, নিজের রুচিতে। এখানেই গড়ে তুলেছি জলসাঘর। গানের মানুষদের জন্য এর দ্বার সবসময় আহ্বানের বার্তা নিয়ে খোলা।
গান শুনতে আমার ভীষণ ভালো লাগে। গান গাইতে ইচ্ছা করে- নিজের জন্য। মৃত্যুর চেয়ে অমোঘ সত্যি আর কোনো কিছু হতে পারে না ! আমরা বৈশ্বয়িক জীবনে যত কিছুর জন্য তাড়াহুড়ো করি না কেন, মৃত্যু অনিবার্য । মৃত্যু মন খারাপ করে দেয়, কারণ মন বেঁচে থাকা অদৃশ্য এমন একটা বিষয়- যা মৃত্যুর বিপরীত ! আজ মনে হলো করোনার এই সময়ে একটা গান পোস্ট করি, আপনাদের জন্য। গান কখনো আমার পেশা নয়, কিন্তু গানের প্রতি আমার ভীষণ মায়া, ভীষণ ভালোবাসা। জানিনা আপনাদের কেমন লাগবে !
আমাদের জীবদ্দশায় এমন সংকট আসবে, কেউ হয়তো কখনো কল্পনাও করেনি । করোনা ভাইরাসের দিনগুলোতে মানুষের খাদ্য-চিকিৎসার অনিশ্চয়তার পাশাপাশি কাজ হারানোর অনেক অনেক গল্প শুনছি বেশ কিছুদিন ধরে । এর ভয়াবহতা যত বেড়েছে, মানুষের তত হাহাকার কানে এসেছে। শেষ দুই মাস শুনেছি অমুক প্রতিষ্ঠান কর্মচারী ছাঁটাই করেছে, তমুক প্রতিষ্ঠান বেতন দেয়নি। মানুষের দুর্দশার কথা শুনে আর ভবিষ্যতের ভাবনায়, অসুস্থ শরীরে ভাবনার জাল আমার ছটফটানি বাড়িয়েছেই শুধু। গতমাসের বেতন দিয়েছি টানাটানি সত্বেও। লকডাউনে একে একে বন্ধ আমাদের গ্রুপের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান । কি হবে এই মাসে ? রাত জেগে থাকতে থাকতে ফজরের আজানের ধ্বনি ভেসে আসে কানে, ‘আসসালাতু খাইরুম মিনান নাউম’ আমি জানি ঘুমের চেয়ে নামাজ উত্তম । আজান হয়েছে কিন্তু আমার সেহেরি খাওয়া হয়নি। আমি শিখেছি- বেঁচে থাকা নয়, সবাই মিলে ভালো থাকা । আমরা ভাবনা জুড়ে ইউনিভার্সাল পরিবারের সেই সব মানুষগুলোর মুখ- যাঁদের উপর নির্ভর করে বাঁচে তাঁদের পরিবার, আর তাঁদের সবার নির্ভরতা আমি । পরামর্শ দাতারা বলেন অন্যদের অনুসরণ করতে ! কিন্তু আমি তো হার না মানা যোদ্ধা । কর্মীদের কারো চাকরি যাবে না এটা আমার অঙ্গীকার , আর ঘরে থাকলেও, কাজে না থাকলেও আমার সন্তানের মত কর্মীদের প্রত্যেকের সম্পুর্ণ বেতন আমি ৩ তারিখের মধ্যেই পৌছে দিতে পেরেছি তাঁদের হাতে । আলহামদুলিল্লাহ্ ।
সামনে কি অপেক্ষা করছে তা’ জানিনা । হয়তো ভয়াবহ না হয় সুন্দর সময়- যেমন অবস্থাই হোক, আমি জানি সর্বস্ব নিয়ে আমি থাকবো ওদের পাশে । আমার সাহস ইউনিভার্সাল পরিবারের প্রতিজন কর্মী, আমার সাহস ইউনিভার্সালের সেরা মানের সব পণ্য ।
ড. সোহানী হোসেন
ব্যবস্থাপনা পরিচালক, ইউনিভার্সাল গ্রুপ, পাবনা।

সর্বশেষ
আন্তর্জাতিক বিভাগের সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত


Copyright ©  BijoyBanglaBD24.com                                 Developed by VIP TECHNOLOGY